পানির সঙ্কট মেটাতে আরবের সাগরে ভাসবে হিমশৈল! | | সেরা নিউজ ২৪ ডটকম | SeraNews24.Com | সর্বদা সত্যের সন্ধানে
বিজ্ঞপ্তিঃ

দেশের জনপ্রিয় জাতীয় অনলাইন দৈনিক “সেরা নিউজ ২৪ ডটকম” এর সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কর্মঠ, সৎ, সাহসী পুরুষ ও মহিলা সংবাদদাতা/প্রতিনিধি/বিশেষ প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগঃ 01727747903 ইমেইলঃ [email protected]

পানির সঙ্কট মেটাতে আরবের সাগরে ভাসবে হিমশৈল!

পানির সঙ্কট মেটাতে আরবের সাগরে ভাসবে হিমশৈল!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সংযুক্ত আরব আমিরাত এবার দেশের পানি সঙ্কট মেটাতে দক্ষিণ মেরু থেকে টেনে আনছে হিমশৈল। প্রকল্পটির দায়িত্বে রয়েছে ‘দ্য ন্যাশনাল অ্যাডভাইসর ব্যুরো লিমিটেড’ নামে দেশেরই একটি সংস্থা। ২০১৭ সালের মে মাসে তাদের ওয়েবসাইটে প্রথম ঘোষণা করা হয় প্রকল্পটির কথা। রাতারাতি খবরের শিরোনামে উঠে আসে বিষয়টি। কিন্তু দ্রুত ধামাচাপা দিয়ে দেওয়া হয়। এমনকি সরকারও এড়িয়ে চলতে শুরু করে প্রসঙ্গটি।

গত রবিবার সংস্থাটির পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, ২০২০ সালের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে কাজ। দক্ষিণ মেরু থেকে আরবের পূর্ব উপকূলে ফুজাইরা পর্যন্ত হিমশৈল টেনে আনতে ৫ থেকে ১০ কোটি ডলার খরচ হবে। সংস্থার ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবদুল্লা মহম্মদ সুলেমান আল শেহি বলেন, আমাদের প্রকল্প সফল হলে, এই অঞ্চলে আর জলাভাব থাকবে না। উল্টে সংযুক্ত আরব আমিরাত হয়ে উঠবে বিশ্বের অন্যতম পরিশোধিত পানি সরবরাহকারী দেশ।

পাঁচ বছর ধরে গবেষণা চলছে। অত দূর থেকে হিমশৈল টেনে আনার সময় বরফ গলা কী ভাবে ন্যূনতম করা যায়, তা নিয়ে কাজ চলছে এখন। আল শেহি জানান, একটি শক্তিশালী ‘টো-বোট’ ব্যবহার করা হবে, যেটি ১০ কোটি টন হিমশৈল টেনে আনার ক্ষমতা রাখে। বলেন, প্রথম ধাপ হচ্ছে, কোন হিমশৈলটিকে আনা হবে, উপগ্রহ চিত্রের সাহায্যে তা নির্ধারণ করা। হিমশৈলটিকে টেনে আনতে টো-বোটকে সাহায্য করবে সমুদ্রের উত্তরমুখী স্রোত। গোটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হয়তো লেগে যাবে ন’মাস। তবে সময় ও খরচ, দু’টোই নির্ভর করছে হিমশৈলের মাপের উপরে। আল শেহির কথায়, বিশ্ব উষ্ণায়নের জেরে বরফ গলছে। লক্ষ লক্ষ গ্যালন পানি নষ্ট হচ্ছে। এ দিকে, ১২০ কোটি মানুষ পানি কষ্টে ভুগছেন। আমাদের প্রকল্প তাঁদের সাহায্য করবে।

২০১৯ সালে পরীক্ষামূলক কাজ শুরু হবে। একটি হিমশৈলকে টেনে আনা হবে অস্ট্রেলিয়ার পার্থ কিংবা দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউনে। পরীক্ষা করে দেখা হবে, প্রকৃতিতে এর প্রভাব কী রকম পড়ছে। আর আইনি জটিলতা? সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আরব উপকূলের কাছে আন্তর্জাতিক সমুদ্র ক্ষেত্রেই থাকবে হিমশৈলটি। তা ছাড়া সমুদ্রনীতি অনুযায়ী, হিমশৈল পানির উৎস। যে কোনও বেসরকারি সংস্থা তা অধিগ্রহণ করতে পারে ও পৃথিবীর অন্য প্রান্তে নিয়ে যেতে পারে। সংস্থার বক্তব্য, সব চেয়ে বড় কথা, আমরা দক্ষিণ মেরুর মূল ভূখণ্ড থেকে হিমশৈল আনছি না। মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সমুদ্রে ভাসতে থাকা একটি হিমশৈল বেছে নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন...

সংবাদ খুজুন

ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিনঃ

 
সেরা নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম – SeraNews24.Com ☑️
পাবলিক গোষ্ঠী · 23,009 জন সদস্য

গোষ্ঠীতে যোগ দিন

প্রতিমুহূর্তের সংবাদ পেতে Like দিন অফিশিয়াল পেইজ এ।
নিউজ পোর্টাল: www.SeraNews24.Com
ফেসবুক গ্রুপ: http://bit.do/SN24FBGroup
ইউটিউব চ্যানেল: http://bi…
 

 About Us     Contact     Privacy & Policy     DMCA     Sitemap

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সেরা নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম ২০১৮

Design & Developed By Digital Computer Center
error: Content is protected !!